Connect with us

Barak Valley

স্ত্রী শিক্ষা ও নারী প্রগতির প্রয়োজনীয়তা :: শিল্পী ভট্টাচার্য ( চক্রবর্তী)

Published

on

স্বামী বিবেকানন্দ এ ব্যাপারে একটি চিঠিতে লিখেছেন,” মনু বলছেন, কন্যা পোষং পালোনিয়া শিক্ষ নিয়াতি যত্নত” ছেলেদের যেমন ৩০ বৎসর পর্যন্ত। ব্রহ্মচর্য করে বিদ্যা শিক্ষা করতে হবে, তেমনি মেয়েদের ও করতে হবে। কিন্তু আমরা কি করছি? তোমাদের মেয়েদের উন্নতি করতে পারো? তবে আশা আছে। নতুবা পশুজন্ম ঘুচিবে না।’ স্বামীজি এই চিঠিটা লেখার পর এক শতাব্দি অতিক্রান্ত হয়ে গেল, কিন্তু মেয়েদের বিদ্যাশিক্ষা বা স্ত্রী শিক্ষার ব্যাপারে এখনও আমরা বিশেষ কিছুই করে উঠতে পারিনি। ভারতীয় নারী সমাজের তিন-চতুর্থাংশ এখনো নিরক্ষর। তবে স্বাধীন ভারতে স্ত্রী শিক্ষার প্রসারে উদ্যোগ-আয়োজন একেবারেই যে হইনি এখনো তা নয়। কিন্তু কার্যত স্ত্রী শিক্ষার ক্ষেত্রে এখনো আমাদের দেশ দারুণভাবে পিছিয়ে। এর পেছনে অনেকগুলো কারণ আছে বলে মনে হয়। প্রথমত, এদেশে বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলের অধিকাংশ মানুষেরই ধারণা, মেয়েদের কাজ ঘর গৃহস্থালী করা এবং ছেলেপিলে মানুষ করা। লেখাপড়ার জগতে মেয়েরা নিজেরাই নিজেদের অবাঞ্চিত মনে করেন। অনেকেই এখনও ধারণা, লেখাপড়া শিখলে তারা পুরুষের সমকক্ষ হয়ে উঠবেন এবং এটা এক ধরনের অপরাধ। স্ত্রী শিক্ষায় আমাদের পিছিয়ে পড়ার তৃতীয় কারণ, আমাদের অর্থনৈতিক দুরবস্থা। শোচনীয় আর্থিক অনটনের কবলে পড়ে অনেকের আন্তরিক ইচ্ছে থাকলেও লেখাপড়া করতে পারেন না। অবশ্য সরকারি অব্যবস্থা এবং শিক্ষা বিস্তারে সাংগঠনিক ত্রুটি ও অনেক সময় প্রতিবন্ধক হয়। বহু সময় দেখা যায়, স্কুল আছে, শিক্ষক নেই। আবার কখনো বা দেখা যায়, শিক্ষক আছেন, বিদ্যার্থী নেই। অনেক সময় আবার বইয়ের অভাবে লেখাপড়া বন্ধ থাকে। সরকারি বই ঠিক সময় ঠিক জায়গায় গিয়ে পৌঁছয় না। এইসব ও ব্যবস্থাগুলি স্ত্রীশিক্ষার চতুর্থ নম্বর শত্রু হিসেবে চিহ্নিত করা যায়। কৃষি শিক্ষার ক্ষেত্রে ৫ নম্বর শত্রু হলো রাজনৈতিক কলকোলাহল কে ঘিরে সামাজিক অস্থিরতা। মনে হয়, শিক্ষাকে ব্যাপক অর্থে গ্রহণ করলে অনেক সমস্যার সমাধান হতে পারে।স্বামী বিবেকানন্দ স্ত্রীশিক্ষার এই বৃহত্তর দিকটি সম্বন্ধে দেশ ও জাতিকে অবহিত করতে চেয়ে ছিলেন। তিনি বলেন, ‘ প্রাচীন শিক্ষা কলার পুনঃপ্রবর্তন করো। জমানো দুধ দিয়ে ফলের বিভিন্ন খাবার কিভাবে প্রস্তুত করা যায় মেয়েদের সেসব শিক্ষা ও রান্না-বান্না, সেলাইয়ের কাজ শেখাও। তারা ছবি আঁকা, কাগজ কেটে বিভিন্ন রকম জিনিস তৈরি করা, সোনার উপর উপর সুন্দর সুন্দর কাজ করা ইত্যাদি শিখুক। লক্ষ্য রাখো তারা প্রত্যেকেই এমন কিছু শিক্ষক যাতে প্রয়োজন হলে তাদের জীবিকা অর্জন করতে পারে।এই যে মেয়েদের ব্যবহারিক শিক্ষা এর ওপর কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ যথেষ্ট গুরুত্ব আরোপ করেছেন।এ সম্পর্কে “ স্ত্রীশিক্ষা “ শীর্ষক প্রবন্ধে তার বক্তব্য, ‘ মেয়েদের মানুষ হইতে শিখার জন্য বিশুদ্ধ জ্ঞানের শিক্ষা চাই কিন্তু তার ওপরে মেয়েদের মেয়ে হইতে শেখাবার জন্য যে ব্যবহারিক শিক্ষা তার একটা বিশেষত্ব আছে একথা মানিতে দোষ কি’। একটা বিষয় কি, আজকাল নারী প্রগতির কথা অনেকের মুখেই শোনা যায়। বিদ্রোহের ঝকে বহু মেয়ে বলে থাকেন, মেয়েদের ব্যবহারের ক্ষেত্রে পুরুষের সঙ্গে একেবারে সমান। তাদের এ ধরনের যুক্তি ও অনেকে স্বীকার করেন না। তারা বলেন, ‘স্ত্রী হওয়া, মা হওয়া, মেয়েদের স্বভাব দাসি হওয়া নয়।’ তাদের মতে, স্নেহ আছে বলেই মা সন্তানের সেবা করে, তার মধ্যে দাস নেই প্রেম আছে বলেই স্ত্রী স্বামীর সেবা করে, তার মধ্যে দায় নেই। সবকিছু মিলিয়ে বিচার করলে মনে হয়, জ্ঞানের রাজ্যে পুরুষ ও নারীর মধ্যে পার্থক্যের সীমারেখা না টানাই ভালো। যা কিছু জানবার যোগ্য তাই বিদ্যা নামে অভিহিত। তা জানবার অধিকারে পুরুষের যেমন নারীরাও তেমনি অধিকার আছে। স্ত্রীশিক্ষা ছাড়া প্রগতি অসম্ভব। কারণ প্রগতি কথাটির অর্থ হল ‘জ্ঞান ও কর্মে অগ্রগতি’। এ যুগে বহু উন্নত দেশের নারীরা যে আমাদের নারীদের তুলনায় প্রগতিশীল শিল্প-বাণিজ্যে, বিজ্ঞানের দর্শনে তারা আমাদের তুলনায় অনেক দূরে গিয়ে তার প্রধানতম কারণ বোধ করি এই যে স্ত্রী শিক্ষায় তারা যত্নবান। আসলে যা দরকার তা হলো এমন শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করা যা আমাদের বিদ্যাবুদ্ধির শুধু নয়, বিবেকবোধের উজ্জীবনে সাহায্য করে। তবেই স্ত্রী শিক্ষা এবং নারী প্রগতি সম্ভব হয়ে উঠবে।

Continue Reading

Barak Valley

সাংবাদিক পেনশন পাচ্ছেন রাজ্যের কুড়িজন প্রবীণ সাংবাদিক ।

Published

on

হাইলাকান্দি, ১৩ আগস্ট: অসম সরকার ২০২১ সালের রাজ্যের প্রবীণ সাংবাদিকদের জন্য পেনশন প্রকল্প ঘোষণা করেছে শুক্রবার। এ বছর রাজ্যের বিভিন্ন জেলার ২০ জন প্রবীণ সাংবাদিককে পেনশনের জন্য মনোনীত করেছে সরকার।

এই কুড়ির তালিকায় রয়েছেন বরাক উপত্যকার দুই প্রবীণ সাংবাদিক। তাঁরা হলেন শিলচরের বিকাশ চক্রবর্তী ও হাইলাকান্দির দীপক রঞ্জন নাথ।

বরাকের প্রবীণ এই দুই সাংবাদিক এবছর সাংবাদিকতার পেনশনের জন্য মনোনীত হওয়ায় তাঁদেরকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বর্তমান কর্মরত সাংবাদিকমহল।

দীপক রঞ্জন নাথ কে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ইলেকট্রনিক মিডিয়া অ্যাসোসিয়েশন, হাইলাকান্দি’র  সভাপতি তিলক রঞ্জন দাস (কুমার দাস), সম্পাদক নীলোৎপল দেব সহ অন্যান্যরা  ।

 এছারাও  হাইলাকান্দি প্রেস ক্লাবের কার্যকরী সভাপতি তথা অসম বার্তাজীবী সংঘের হাইলাকান্দি জেলার সভাপতি দীপক রঞ্জন নাথ পেনশনের জন্য মনোনীত হওয়ায় তাঁকে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রেস ক্লাবের সম্পাদক সহ অন্যান্য প্রেস ক্লাবের পদাধিকারী।

এদিকে, হাইলাকান্দি জেলা থেকে এবছর একমাত্র দীপক রঞ্জন নাথ সাংবাদিক পেনশনের জন্য মনোনীত হওয়ায় খুশির জোয়ার হাইলাকান্দির সাংবাদিক মহলে। অন্যদিকে, হাইলাকান্দি রোটারি ক্লাবের পক্ষ থেকেও অভিনন্দন জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য সম্প্রীতি হাইলাকান্দি রোটারি ক্লাবের মিডিয়া হিরোর সম্মাননা পেয়েছিলেন প্রবীণ সাংবাদিক দীপক রঞ্জন নাথ ।

Continue Reading

Barak Valley

মাধবধামে হিন্দু জাগরণ মঞ্চের জেলা কমিটি পুনর্গঠন

Published

on

সুব্রত দাস,বদরপুর :: গত বুধবার শ্রীভূমি (করিমগঞ্জ) জেলার শ্রীগৌরী মাধবধামে হিন্দু জাগরণ মঞ্চের শ্রীভূমি জেলা কমিটি পুনর্গঠন করা হয়। হিন্দু জাগরণ মঞ্চের ক্ষেত্রীয় সংগঠন মন্ত্রী বিজয় পাল ও হিন্দু জাগরণ মঞ্চের দক্ষিণ আসাম প্রান্তের বেটি বাঁচাও প্রমুখ দেবজ্যোতি দাসের উপস্থিতিতে এই কমিটি পুনর্গঠন করা হয়। এতে মনোজিৎ চক্রবর্তীকে শ্রীভূমি জেলার সভাপতি,সহ-সভাপতি রাজীব শর্মা,সুজয় শ্যাম,রূপম শর্মা,সম্পাদক-লিটন ধর,কোষাধ্যক্ষ দেবরাজ চক্রবর্তী,সহ-সম্পাদক সন্দীপ মজুমদার,যুবা বাহিনী প্রমুখ বান্টি রায়,বীরাঙ্গনা বাহিনী প্রমুখ অনুরাধা মালাকার এবং প্রচার প্রমুখ সাজন দেব কে দায়িত্ব দেওয়া হয়।

Continue Reading

Barak Valley

আগামীকাল শিলচরে চারটি কেন্দ্রে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে

Published

on

জনসংযোগ, শিলচর ১ আগস্ট :– আগামী কাল সোমবার শিলচর শহরের চারটে কেন্দ্রে কোভিশিল্ড ভেকসিন দেওয়া হবে ।
নাজিরপট্টি মডেল স্কুলে স্লট বুকিং এর মাধ্যমে কোভিশিল্ডের দ্বিতীয় ডোজ ৩০০ টি দেওয়া হবে । এখানে অন স্পট রেজিস্ট্রেশনে কোন ধরনের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে না ।
অম্বিকাপট্টির দূর্গাশংকর পাঠশালায় স্লট বুকিংঙে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ১০০ টি করে এবং অন স্পট রেজিস্ট্রেশনে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ আরও ১০০ টি করে মোট ৪০০ টি ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।
সিনিয়র সিটিজেনদের জন্য শহরের গভর্নমেন্ট গার্লস হাইয়ার সেকেন্ডারি স্কুলে অন স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ কোভিশিল্ড ২০০ টি করে মোট ৪০০ টি ভ্যাকসিন দেওয়া হবে । এখানে স্লট বুকিং এর মাধ্যমে কোভিশিল্ড দেওয়া হবে না। এছাড়া শিলচর কনকপুর রোডের তারিণী মোহন এলপি স্কুলে স্লট বুকিংঙে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ১০০ টি করে এবং অন স্পট রেজিস্ট্রেশনে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ আরও ১০০ টি করে মোট ৪০০ টি ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।

Continue Reading

Trending