Connect with us

Barak Valley

শিলচর মেডিকেল কলেজে কোনও ধরনের পরিকাঠামোগত উন্নতি না করেই কোভিড জোন ? রোগীদের হয়রানি সহ অনেক প্রশ্ন তুলেন :: আইনজীবী প্রদীপ দত্ত রায়

Published

on

যুব দর্পণ নিউজ, 2 আগস্ট, শিলচর ::শিলচর মেডিকেল কলেজে কোনও ধরনের পরিকাঠামোগত উন্নতি না করেই কোভিড জোন বসিয়ে দেওয়া হয়েছে। করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার নামে চরম অব্যবস্থা শুরু হয়েছে। এখানে কোভিড রোগীর সংখ্যা প্রচুর এটা মানছি, তবে পর্যাপ্ত সংখ্যায় ডাক্তার বা স্বাস্থ্যকর্মী নেই, নার্স নেই এবং এই দুরবস্থার মধ্যেই আক্রান্ত রোগীদের সেখানে নিয়ে রাখা হচ্ছে। যেখানে তাদের রাখা হচ্ছে সেই এলাকা অত্যন্ত নোংরা, ল্যাট্রিন-বাথরুম দুর্গন্ধময় ও অপরিষ্কার। পর্যাপ্ত সেনিটাইজেশন হচ্ছে না রোগীদের খাবার দাবার অত্যন্ত নিম্নমানের। ১১ টায় সকালের খাবার দেওয়া হয়, সাড়ে তিনটা বা চারটার সময় দুপুরের খাবার, রাতের খাবার পৌঁছতে পৌঁছতে সাড়ে এগারোটা বেজে যায়। এটা অত্যন্ত বাস্তব এবং রোগীরা এই কথাগুলো বার বার তুলে ধরছেন। প্রয়োজনে ডাক্তাররা সেখানে যান না, রোগীদের ভালোভাবে দেখাশোনা করা হয় না। এই চরম দুরবস্থার মধ্যেও আক্রান্ত রোগীরা বাধ্য হয়ে সেখানে ১৪দিন কাটাচ্ছেন। অথচ সবকিছু জেনেও স্বাস্থ্য বিভাগ এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রী কি করছেন বুঝতে পারছি না। এসবে অতিষ্ঠ হয়ে শহরের বিভিন্ন পাড়ার লোক নিজেরাই রোগীদের বাড়িতে রেখে চিকিৎসা করানোর দায়িত্ব নিচ্ছেন। আমরা সম্মতি দেখেছি হাইলাকান্দির সুকান্ত সরণি এগিয়ে এসে এই পদক্ষেপে সায় দিয়েছে। অথচ আশ্চর্যের বিষয় প্রায় তিন মাস আগে স্বাস্থ্যমন্ত্রী শিলচরে এসে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেছিলেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার গ্রাউন্ডে আর্মির সহায়তায় ১০০০ শয্যা বিশিষ্ট একটি টেম্পোরারি কোভিড কেয়ার সেন্টার খুলবেন। এই প্রতিশ্রুতি এখনও বাস্তবায়ন হয়নি। এছাড়া কাছাড় জেলায় ৩০০শয্যা বিশিষ্ট একটি কোভিড হাসপাতাল করার ঘোষণাও তিনি করেছিলেন। একসময় সেই অনুযায়ী মেহেরপুরে জমি দেখাও হলো। ঘোষণা এবং জমি দেখাই সার, এরপর আর একচুলও কাজ এগোয়নি। সমস্ত কিছুই ভাওতা, প্রতিশ্রুতি মাত্র, নিজের দেওয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে পারছেননা স্বাস্থ্যমন্ত্রী।
প্রত্যেক করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ক্ষেত্রে কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকারের যৌথ খাতে দেড় লক্ষ টাকা করে দেওয়া হচ্ছে। অথচ রোগীদের যে নিম্নমানের খাবার এবং থাকার ব্যবস্থা দেওয়া হচ্ছে, আমার মনে হয় না ৫০ হাজার টাকাও খরচ হয়। তাহলে বাকি একলক্ষ টাকা কোথায় যাচ্ছে? রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর করোনা মুকাবেলায় সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ। আমাদের ঐতিহ্যবাহী শিলচর মেডিকেল কলেজ বহু আন্দোলনের ফলে এসেছিল। যেভাবে কাগজ কল, সুগারমিল ইত্যাদি কালক্রমে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে, আমার মনে হয় এই হাসপাতালকেও একইভাবে শেষ করে দেওয়ার পরিকল্পনা চলছে। তাই এখন সাধারণ জনগণকে সতর্ক হতে হবে এবং জোর গলায় আওয়াজ তুলতে হবে। আমি জেলার প্রত্যেক ব্যক্তির কাছে এই আবেদনটুকু রাখছি, পাশাপাশি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি, তিনি যেন এই অন্যায়গুলো চোখের সামনে হতে না দেন। এগিয়ে এসে এসব অন্যায়ের বিরুদ্ধে শক্ত পদক্ষেপ নেন। তারই সঙ্গে আমি কাছাড়ের জেলাশাসকের কাছেও আবেদন রাখছি, তিনি যেন এসব ব্যাপারে কড়া নজরদারি রাখেন। তার মত একজন যোগ্য ব্যক্তি কাছাড় জেলায় থাকা সত্ত্বেও সাধারণ মানুষের সঙ্গে এভাবে অন্যায় হবে, এটা আমার আশা ছিল না। তার কাছে আমার অনুরোধ, তিনি যেন নিজে শিলচর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কোভিড জোনে ঢুকে রোগীদের অবস্থা যাচাই করেন ।
ডাক্তারদের চূড়ান্ত অবহেলার কারণে শিলচর মেডিকেল কলেজে দিন দিন রোগীরা মারা যাচ্ছেন, মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। গতকাল ফয়জুল হক লস্কর নামের একজন রোগীর গোল্ড ব্লাডার ব্লাস্ট হয়ে পেট ফুলে যাওয়ায় চিকিৎসার জন্য শিলচর মেডিকেল নিয়ে গেলে সেখানে কোনও ডাক্তার পাওয়া যায়নি। কোনরকম ভাবে একজন জুনিয়র ডাক্তার এসে তাকে নিয়ে অপারেশন থিয়েটারে ভর্তি করলেন, সোনোগ্রাফিতে দেখা গেল গোল্ডব্লাডার ব্লাস্ট হয়েছে, অপারেশন দরকার। অপারেশন থিয়েটারে পিজি স্টুডেন্টরা তার টেম্পারেচার চেক করলো, টেম্পারেচার স্বাভাবিক মাত্রা থেকে বেশি ছিল, ফলে তাকে পাঠিয়ে দেওয়া হল করোনা ওয়ার্ডে। যেখানে একজন রোগীর অপারেশন দরকার এবং সেই অপারেশন করতে খুব বেশি সময়ও লাগে না, তার অপারেশন না করে করোনা ওয়ার্ডে পাঠিয়ে দেওয়া হল। সেখানে তার অবস্থার অবনতি ঘটে এবং আইসিইউতে পাঠিয়ে দেওয়া হয় এবং এক ঘণ্টার মধ্যেই রোগীর মৃত্যু হয়। এটা অত্যন্ত দুঃখের ব্যাপার এবং আমাদের চোখের সামনে শিলচর মেডিকেল কলেজে ধরনের ঘটনা ঘটে যাচ্ছে।
এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে উক্ত খবর জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আকসা তথা আইনজীবী গৌহাটি হাইকোর্ট
প্রদীপ দত্ত রায় ।
IMG_20200729_211654

Continue Reading

Barak Valley

সাংবাদিক পেনশন পাচ্ছেন রাজ্যের কুড়িজন প্রবীণ সাংবাদিক ।

Published

on

হাইলাকান্দি, ১৩ আগস্ট: অসম সরকার ২০২১ সালের রাজ্যের প্রবীণ সাংবাদিকদের জন্য পেনশন প্রকল্প ঘোষণা করেছে শুক্রবার। এ বছর রাজ্যের বিভিন্ন জেলার ২০ জন প্রবীণ সাংবাদিককে পেনশনের জন্য মনোনীত করেছে সরকার।

এই কুড়ির তালিকায় রয়েছেন বরাক উপত্যকার দুই প্রবীণ সাংবাদিক। তাঁরা হলেন শিলচরের বিকাশ চক্রবর্তী ও হাইলাকান্দির দীপক রঞ্জন নাথ।

বরাকের প্রবীণ এই দুই সাংবাদিক এবছর সাংবাদিকতার পেনশনের জন্য মনোনীত হওয়ায় তাঁদেরকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বর্তমান কর্মরত সাংবাদিকমহল।

দীপক রঞ্জন নাথ কে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ইলেকট্রনিক মিডিয়া অ্যাসোসিয়েশন, হাইলাকান্দি’র  সভাপতি তিলক রঞ্জন দাস (কুমার দাস), সম্পাদক নীলোৎপল দেব সহ অন্যান্যরা  ।

 এছারাও  হাইলাকান্দি প্রেস ক্লাবের কার্যকরী সভাপতি তথা অসম বার্তাজীবী সংঘের হাইলাকান্দি জেলার সভাপতি দীপক রঞ্জন নাথ পেনশনের জন্য মনোনীত হওয়ায় তাঁকে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রেস ক্লাবের সম্পাদক সহ অন্যান্য প্রেস ক্লাবের পদাধিকারী।

এদিকে, হাইলাকান্দি জেলা থেকে এবছর একমাত্র দীপক রঞ্জন নাথ সাংবাদিক পেনশনের জন্য মনোনীত হওয়ায় খুশির জোয়ার হাইলাকান্দির সাংবাদিক মহলে। অন্যদিকে, হাইলাকান্দি রোটারি ক্লাবের পক্ষ থেকেও অভিনন্দন জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য সম্প্রীতি হাইলাকান্দি রোটারি ক্লাবের মিডিয়া হিরোর সম্মাননা পেয়েছিলেন প্রবীণ সাংবাদিক দীপক রঞ্জন নাথ ।

Continue Reading

Barak Valley

মাধবধামে হিন্দু জাগরণ মঞ্চের জেলা কমিটি পুনর্গঠন

Published

on

সুব্রত দাস,বদরপুর :: গত বুধবার শ্রীভূমি (করিমগঞ্জ) জেলার শ্রীগৌরী মাধবধামে হিন্দু জাগরণ মঞ্চের শ্রীভূমি জেলা কমিটি পুনর্গঠন করা হয়। হিন্দু জাগরণ মঞ্চের ক্ষেত্রীয় সংগঠন মন্ত্রী বিজয় পাল ও হিন্দু জাগরণ মঞ্চের দক্ষিণ আসাম প্রান্তের বেটি বাঁচাও প্রমুখ দেবজ্যোতি দাসের উপস্থিতিতে এই কমিটি পুনর্গঠন করা হয়। এতে মনোজিৎ চক্রবর্তীকে শ্রীভূমি জেলার সভাপতি,সহ-সভাপতি রাজীব শর্মা,সুজয় শ্যাম,রূপম শর্মা,সম্পাদক-লিটন ধর,কোষাধ্যক্ষ দেবরাজ চক্রবর্তী,সহ-সম্পাদক সন্দীপ মজুমদার,যুবা বাহিনী প্রমুখ বান্টি রায়,বীরাঙ্গনা বাহিনী প্রমুখ অনুরাধা মালাকার এবং প্রচার প্রমুখ সাজন দেব কে দায়িত্ব দেওয়া হয়।

Continue Reading

Barak Valley

আগামীকাল শিলচরে চারটি কেন্দ্রে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে

Published

on

জনসংযোগ, শিলচর ১ আগস্ট :– আগামী কাল সোমবার শিলচর শহরের চারটে কেন্দ্রে কোভিশিল্ড ভেকসিন দেওয়া হবে ।
নাজিরপট্টি মডেল স্কুলে স্লট বুকিং এর মাধ্যমে কোভিশিল্ডের দ্বিতীয় ডোজ ৩০০ টি দেওয়া হবে । এখানে অন স্পট রেজিস্ট্রেশনে কোন ধরনের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে না ।
অম্বিকাপট্টির দূর্গাশংকর পাঠশালায় স্লট বুকিংঙে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ১০০ টি করে এবং অন স্পট রেজিস্ট্রেশনে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ আরও ১০০ টি করে মোট ৪০০ টি ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।
সিনিয়র সিটিজেনদের জন্য শহরের গভর্নমেন্ট গার্লস হাইয়ার সেকেন্ডারি স্কুলে অন স্পট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ কোভিশিল্ড ২০০ টি করে মোট ৪০০ টি ভ্যাকসিন দেওয়া হবে । এখানে স্লট বুকিং এর মাধ্যমে কোভিশিল্ড দেওয়া হবে না। এছাড়া শিলচর কনকপুর রোডের তারিণী মোহন এলপি স্কুলে স্লট বুকিংঙে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ১০০ টি করে এবং অন স্পট রেজিস্ট্রেশনে প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ আরও ১০০ টি করে মোট ৪০০ টি ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।

Continue Reading

Trending